শিরোনাম:
এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’ ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুর তনয়া, দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপা, আপনি আস্থা ও ভরসার শেষ ঠিকানা’
১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ঈদের পর আরেকটি ঢেউয়ের আশঙ্কা

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে গত এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া সরকার ঘোষিত ‘লকডাউন’ কাজে দিয়েছে। এখন সংক্রমণ অনেকটাই কমে এসেছে। কিন্তু ‘লকডাউনের’ দীর্ঘমেয়াদি সুফল পাওয়া নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে ঈদকেন্দ্রিক কেনাকাটা এবং সড়কে–ঘাটে যে ভিড় দেখা যাচ্ছে, তাতে চলতি মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে দেশে আবার করোনার সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এর সঙ্গে বাড়তি শঙ্কার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্ট (রূপান্তরিত ধরন), যা ইতিমধ্যে বাংলাদেশেও শনাক্ত হয়েছে। এই ভেরিয়েন্টটি ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি সামলানো মুশকিল হবে মনে করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। পরিস্থিতি দেখে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও আশঙ্কা করছে, ঈদের পর দেশে সংক্রমণের আরেকটি ঢেউ আসতে পারে।

গত বছর দেশে ঈদুল ফিতরের পরপরই করোনাভাইরাসের সংক্রমণে বড় লাফ দেখা দিয়েছিল। স্বাস্থ্যবিধি না মানায় এবারও একই পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে। জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হারে যে নিম্নমুখী প্রবণতা ছিল, তা একটা পর্যায়ে এসে ইতিমধ্যে থমকে গেছে। গত পাঁচ দিনে খুব সামান্য হলেও রোগী শনাক্তের হার বাড়তে দেখা গেছে।

গত মার্চ থেকে শুরু হওয়া সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ এপ্রিলের মাঝামাঝি থেকে নিম্নমুখী হতে শুরু করে। ১৬ এপ্রিল থেকে প্রায় প্রতিদিন রোগী শনাক্তের হার কমতে দেখা গেছে। এই প্রবণতা ছিল ৬ মে পর্যন্ত। এরপর তাতে ছেদ পড়েছে। সর্বশেষ পাঁচ দিনে (৭–১১ মে) মোট পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ছিল ৮ দশমিক ৯০ শতাংশ। আর তার আগের পাঁচ দিনে (২–৬ মে) শনাক্তের হার ছিল ৮ দশমিক ৮০ শতাংশ।

ঈদের আগে কেনাকাটা করতে বিপণিবিতানগুলোতে ভিড় করছেন লোকজন। করোনা মহামারির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ক্রেতাদের ঘোরাঘুরি করতে দেখা যায়। সোমবার বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম নগরের জহুর হকার মার্কেটে
ঈদের আগে কেনাকাটা করতে বিপণিবিতানগুলোতে ভিড় করছেন লোকজন। করোনা মহামারির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ক্রেতাদের ঘোরাঘুরি করতে দেখা যায়। সোমবার বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম নগরের জহুর হকার মার্কেটে

জনস্বাস্থ্যবিদ আবু জামিল ফয়সাল প্রথম আলোকে বলেন, এখন যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে লকডাউনের যে সুফল পাওয়া যাচ্ছিল, তা বড় ধরনের ঝুঁকির মধ্যে পড়ে গেল। আগামী দুই–তিন সপ্তাহের মধ্যে সংক্রমণ বেড়ে যাবে। এর মধ্যে দেশে ভারতীয় ভেরিয়েন্ট পাওয়া গেছে। সব মিলিয়ে ঈদের পর একটি সাংঘাতিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, টানা দীর্ঘদিন লকডাউন চালানো সম্ভব নয়। সে ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা এবং রোগী শনাক্ত করে আইসোলেশন (বিচ্ছিন্ন রাখা), রোগীর সংস্পর্শে আসাদের কোয়ারেন্টিনে (সঙ্গনিরোধ) রাখা এবং সীমান্ত এলাকায় কড়াকড়ি নিশ্চিত করা জরুরি।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কথা জানানো হয়। সংক্রমণ ঠেকাতে ওই বছরের ২৬ মার্চ থেকে টানা ৬৬ দিন দেশজুড়ে সাধারণ ছুটি ছিল। তখন সব ধরনের যোগাযোগব্যবস্থা, ব্যবসা, বাণিজ্য, কলকারখানা বন্ধ করে অনেকটা ‘লকডাউন’ পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছিল। তবে ছুটি চলাকালে গত বছরের ২৬ এপ্রিল থেকে পোশাক কারখানা এবং ইফতারি বিক্রির দোকান খুলে দেওয়া হয়। এর ঠিক দুই সপ্তাহ পর সংক্রমণের দশম সপ্তাহ (১০–১৬ মে, ২০২০) থেকে পরিস্থিতির অবনতি হতে শুরু করে।

admin

Read Previous

হঠাৎ চীনের এই বক্তব্য কেন, বুঝতে চায় বাংলাদেশ

Read Next

টুপি-আতরের বেচাকেনা ‘অর্ধেক’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *