শিরোনাম:
এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’ ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুর তনয়া, দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপা, আপনি আস্থা ও ভরসার শেষ ঠিকানা’
৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

এমএফএস প্রতিষ্ঠানের কর বাড়তে পারে

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয়, এমন প্রতিষ্ঠানের করপোরেট কর কমলেও শুধু মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক সেবা (এমএফএস) দেয়, এমন প্রতিষ্ঠানের কর বাড়তে পারে। এই ধরনের প্রতিষ্ঠান এখন সাড়ে ৩২ শতাংশ হারে করপোরেট কর দেয়। নতুন অর্থবছরে এসব প্রতিষ্ঠানকে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান শ্রেণিতে ফেলা হতে পারে। এতে তাদের ওপর ৪০ শতাংশ কর আরোপ হতে পারে। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হলে তা সাড়ে ৩৭ শতাংশে নেমে আসবে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দায়িত্বশীল সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। বর্তমানে বিকাশ, রকেট, নগদের মতো প্রতিষ্ঠান মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক সেবা দেয়। এমএফএস এখন দেশের অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে গেছে।

এ ছাড়া শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয়, এমন প্রতিষ্ঠানের করপোরেট কর আড়াই শতাংশ করে কমছে। আর একক ব্যক্তির মালিকানাধীন কোম্পানির করহার ২৫ শতাংশ নির্ধারিত হতে পারে।

বাংলাদেশে ২০১১ সালে প্রথম এমএফএস সেবা চালু করে ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংকটি রকেট নামে এ সেবা পরিচালনা করছে। এরপর ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বিকাশ এ ধরনের সেবা চালু করে। বর্তমানে দেশে ১৫টি প্রতিষ্ঠান এমএফএস সেবা দিচ্ছে। এর মধ্যে কোনো ব্যাংক আলাদা কোম্পানি খুলে সেবা দিচ্ছে, আবার কোনো কোনো ব্যাংক আলাদা কোম্পানি না খুলে নতুন সেবা হিসেবে এটি চালু করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মার্চ শেষে দেশে এমএফএস সেবার মোট গ্রাহক ছিল ১০ কোটি ২৭ লাখ ৯৬ হাজার।

admin

Read Previous

সম্ভাবনার ব্যবসায় সহায়তার আশা

Read Next

ট্যানারিমালিকদের সহায়তা দরকার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *