শিরোনাম:
রামেক হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে আরও ১৮ জনের মৃত্যু এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’
১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

‘দ্যাশ-গেরাম ঢাকার চাইতে বেশি নিরাপদ’

ঈদের আগে আগে ঢাকায় ভোর হয়, আর কিছু মানুষ পথে বের হয়। এই পথের এক পায়ে ভয়, আরেক পায়ে আনন্দ। আনন্দ এই যে ‘বাড়ি যাচ্ছি, বাড়ি যাচ্ছি’। আর ভয়? বাস বন্ধ, কীভাবে ঘাটে যাব? ঘাটে ফেরি বা ট্রলার না পেলে কীভাবে পদ্মা-মেঘনা-যমুনা পার হয়ে বাড়ির ঠিকানায় পৌঁছাব? এমন কষ্টমেশানো আনন্দের পথের যাত্রীদের একজন রায়হান। সায়েদাবাদ থেকে মোটরসাইকেল ভাড়া করে মাওয়া ঘাটের মোড়ে এসে কেবল পৌঁছেছেন। তখন দুপুর ১২টা। করোনার ভয় নিয়েও কেন বাড়ি যাচ্ছেন?

১৯-২০ বছর বয়সী ছেলেটার মুখে অসহায়ত্বের কষ্ট। কাঁদো কাঁদো মুখে বললেন, ‘মায়ে স্ট্রোক করছে, আমারে যাইতেই হবে’। এদিকে ভাড়ার মোটরসাইকেল তাঁকে ছাড়ছে না। ২০০ টাকার ভাড়া ৫৬০ টাকা দেওয়ার পরেও মোটরসাইকেলঅলা মানছেন না। তাঁর দাবি ৮০০ টাকা। কোনোমতে তাঁকে সেখান থেকে ছাড়ানো গেল।

সুখী মানুষ সকলে একরকম, দুঃখীদের দুঃখের বহু কারণ। রায়হান ঢাকার এক কারখানার শ্রমিক। কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে মায়ের অসুস্থতার খবর। ফেরি বন্ধ শুনে রায়হান রওনা হলো ট্রলার ঘাটের দিকে। সেখানে নদীতীরে গুচ্ছ গুচ্ছ যাত্রী, আর ট্রলারগুলো মাঝনদীতে। যাত্রীরা হাতের ইশারায় ট্রলার ডাকে। কোনো লাভ হয় না। কী কারণ? পুলিশ কোনো ট্রলার ভিড়তে দিচ্ছে না। রায়হান তবু নদীর পাড়ে যায়, তাকিয়ে থাকে ওপারের দিকে। ওপারে, তারপর সেখান থেকে আরও দূরে, বরিশালে তাঁর বাড়ি। অন্য সময় লঞ্চে যেত, এবার সে উপায়ও বন্ধ।

‘আমরা করোনার চাইতেও শক্তিশালী’

ঘাটের কাছে পর্দাঘেরা চায়ের দোকানে বেশ কজন নারী-পুরুষ বসা। করোনাকে ভয় পান না? বলামাত্রই মাস্কের আড়াল থেকে একজন আবৃত্তির ঢঙে শুরু করলেন, ‘আমরা করোনার চাইতেও শক্তিশালী। করোনার এমন কোনো শক্তি নাই, যা আমাদের পরাজিত করতে পারে। এই অদৃশ্য শক্তি আমাদের কিছুই করতে পারবে না।’ মাস্কের আড়ালে তাঁর হাসি দেখা না গেলেও আওয়াজ পাওয়া গেল। তাঁকে সমর্থন করলেন আরেক যাত্রী, ‘মন্ত্রী গত বছর যা বলেছেন, সেটা একেবারে রাইট। করোনা অদৃশ্য শক্তি, আমরা অদৃশ্য শক্তিকে জয় করতে পারব।’

admin

Read Previous

ঢাকার উদ্যানে গাছ আর ইট–পাথর সমানে সমান

Read Next

উজানে টানা বৃষ্টিপাত, হাওরে বন্যার আশঙ্কা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *