শিরোনাম:
রামেক হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে আরও ১৮ জনের মৃত্যু এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’
১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পশ্চিমবঙ্গে ৫০ বছরে এত ভোট পায়নি কেউ

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস মোট ২১৩টি আসন পেয়েছে। ২০১৬ সালের নির্বাচন থেকে এবার আসন বেড়েছে দুটি। বেড়েছে ভোট পাওয়ার হারও। এবার তৃণমূল প্রায় ৪৮ শতাংশ (৪৭.৯৪%) ভোট পেয়েছে, যা তারা অতীতে কখনো পায়নি। বস্তুত ১৯৭২ সালের পর গত ৫০ বছরে এককভাবে কোনো দল পশ্চিমবঙ্গে এত বেশি ভোট পায়নি।

১৯৭২ সালে ৪৯ শতাংশ ভোট পেয়েছিল কংগ্রেস। আর পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ৭০ বছরের ইতিহাসে ভোটপ্রাপ্তির দিক থেকে তৃণমূল এখন দ্বিতীয় স্থানে। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতা ও রাজ্যসভার সাংসদ শুখেন্দুশেখর রায় প্রথম আলোকে বলেন, এটা বিরাট তাৎপর্যপূর্ণ একটা ঘটনা।

‘১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের মহিমা ও প্রভাবে কংগ্রেস ওই ভোট পেয়েছিল। আর এবারে কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ করে সেই রেকর্ড আমরা ছুঁয়ে ফেললাম,’ বললেন সুখেন্দুশেখর রায়, যিনি সেই সময় কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

বামফ্রন্টের ভোটও ৫০ শতাংশের ওপরে গিয়েছিল, সেটা ছিল তাদের জোটগত হিসাবে, একক দল হিসাবে নয়। সিপিআইএমসহ (কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়া মার্ক্সিস্ট) কোনো বাম দল ৪৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ ভোটের কাছাকাছিও যায়নি। ১৯৭২ সাল বাদ দিলে গত ৭০ বছরে এককভাবে কোনো দলের এটাই সবচেয়ে বেশি ভোটপ্রাপ্তি।

বিজেপির অর্জনও কম নয়

এই নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) অর্জনও কম নয়। তারা এত আসন এর আগে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় পায়নি। বিজেপির জন্মের অনেক আগে, ১৯৫১-৫২ সালের প্রথম নির্বাচনে হিন্দুত্ববাদী দল হিন্দু মহাসভা ও ভারতীয় জনসংঘ—দুই দল মিলে ১৩টি আসন পেয়েছিল। এই জনসংঘ থেকেই ১৯৮০ সালে বিজেপির জন্ম হয়। ফলে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ যখন এবার বিজেপির ৭৭টি আসন পাওয়াকে ‘খুব বড় সাফল্য’ বলে বর্ণনা করেন, তখন খুব অতিরঞ্জিত কিছু নয়।

রোববার রাতে বিধানসভার ভোটের ফল প্রকাশের পর তাৎপর্যপূর্ণ আরেকটি ঘটনা সামনে এসেছে। আট দফা নির্বাচনের প্রথম কয়েকটি দফার পরই ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহসহ অন্যান্য বিজেপি নেতা বলতে শুরু করেন, তাঁরা সংখ্যাগরিষ্ঠতায় (১৪৮ আসন) পৌঁছে গিয়েছেন। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, প্রথম পাঁচ দফার পর তৃণমূল কংগ্রেস বরং ১৬৬–তে পৌঁছে গিয়েছিল, আর বিজেপি পৌঁছেছিল ৪২-এ। মোটামুটি প্রতি দফা ভোটেই বিজেপির থেকে তৃণমূল কংগ্রেস অনেকটা এগিয়ে ছিল। চতুর্থ দফায় ৪১টি আসনে ভোট গ্রহণ হলেও বিজেপি পেয়েছিল মাত্র ২টি আসন। তৃতীয়, ষষ্ঠ ও অষ্টম দফাতেও বিজেপি খুব খারাপ ফল করেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিজেপির রাজ্য স্তরের এক নেতা দলের দুটি দুর্বলতার কথা বললেন, যা তাঁর ব্যক্তিগত অভিমত বলে তিনি জানালেন। প্রথমত সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকা সুব্রত চ্যাটার্জিকে সরানো হয়েছিল নির্বাচনের কয়েক মাস আগে। এখন মনে হচ্ছে, এটা ভুল সিদ্ধান্ত ছিল।

দ্বিতীয়ত, এক লাখের ওপরে বুথ থাকলেও সেই বুথ ও অঞ্চল দেখাশোনার জন্য বুথপিছু ১০ জন সদস্য দরকার। যার অর্থ ১০ লাখের ওপরে কর্মী থাকা দরকার, যা পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির নেই। ‘এটা দেখা দরকার—কোথায় আমরা এজেন্ট দিতে পারিনি এবং অন্য দলের লোকেরা আমাদের এজেন্ট হয়ে কোথায় কাজ করেছেন,’ বলেন বিজেপির ওই নেতা। তিনি জানান, দলের ভেতরে কাটাছেঁড়ার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে।

বাম–কংগ্রেস কি হারিয়ে যাচ্ছে

admin

Read Previous

এ কেমন দাস্ত; ডায়রিয়া, কলেরা, না অন্য কিছু

Read Next

চার মাসের মধ্যে দুই কোটি টিকা আনা সরকারের লক্ষ্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *