শিরোনাম:
রামেক হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে আরও ১৮ জনের মৃত্যু এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’
১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাহস নিয়ে তাঁরা রোগীর পাশে

দেশে গত বছর যখন করোনা সংক্রমণ শুরু হয়, তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের আইসিউ ইনচার্জ নার্স শামসুন্নাহার কর্তৃপক্ষের কাছে তাঁকে করোনা ইউনিটে দায়িত্ব দেওয়ার অনুরোধ জানান। মাঝে কয়েক মাসের বিরতি বাদে সেই থেকে তিনি করোনা ইউনিটে দায়িত্ব পালন করছেন।

যখন সবাই করোনা নিয়ে আতঙ্কে ছিলেন, তখন কেন স্বেচ্ছায় করোনা ইউনিটে গেলেন, জানতে চাইলে মধ্যবয়সী শামসুন্নাহার প্রথম আলোকে বলেন, ‘দুঃসময়ে যদি মানুষের পাশে না থাকি, তবে এই পেশায় কেন আছি।’

করোনাকালে ঝুঁকি নিয়ে বাংলাদেশসহ বিশ্বজুড়ে চিকিৎসকেরা যেমন রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে গেছেন, তেমনি রোগীর পাশে থেকেছেন নার্সরা। ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অব নার্সেস জানিয়েছে, গত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বিশ্বের ৫৯টি দেশের ২ হাজার ৭১০ জন নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএনএ) হিসাবে, দেশে ১৪ হাজারের বেশি নার্স সরাসরি করোনা রোগীর সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তাঁদের মধ্যে তিন হাজারের বেশি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ২৫ জন। এই হিসাবটি শুধু সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের।

# করোনায় মারা গেছেন ২৫ জন নার্স।
# আক্রান্ত হয়েছেন তিন হাজারের মতো।
# শুরুর দিকে করোনা ওয়ার্ডে কাজ করা কেউ কেউ হয়েছিলেন হেনস্তার শিকার।

আজ বুধবার (১২ মে) পালিত হবে আন্তর্জাতিক নার্স দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য, ‘নার্স: এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে ভবিষ্যৎ স্বাস্থ্য খাতে একটি দর্শন’। নার্স দিবস উপলক্ষে প্রতিবছর ১২ মে দিনটি বেছে নেওয়ার কারণ, এদিন আধুনিক নার্সিং সেবার সূচনাকারী ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্মদিন। ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অব নার্সেস ১৯৬৫ সাল থেকে তাঁর স্মরণে দিনটিকে আন্তর্জাতিক নার্স দিবস হিসেবে পালন করছে। বিএনএ জানায়, বাংলাদশেও ১৯৭৪ সাল থেকে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

নার্সিং পেশার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, করোনার কারণে সারা বিশ্বেই নার্সদের ভূমিকা নতুন করে সামনে এসেছে। বাংলাদেশেও স্বাস্থ্য খাতে নার্সরা কতটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন, তা সবাই উপলব্ধি করতে পেরেছেন।

নার্সরা বলেছেন, করোনার শুরুর দিকে হাসপাতালে নানা রকম সংকট ছিল। করোনা রোগীর সেবার কারণে সামাজিকভাবে তাঁদের বাধার মুখে পড়তে হয়েছে। কেউ কেউ হেনস্তারও শিকার হয়েছেন। তবু তাঁরা পিছু হটেননি। সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছেন সব ভয়কে উড়িয়ে।

বিএসএমএমইউর নার্স শামসুন্নাহার স্বেচ্ছায় করোনা ইউনিটে কাজ নেওয়ার পর কী অভিজ্ঞতা হয়েছিল, তা তুলে ধরেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘মানুষ আমাদের দেখলে মনে করত, আমরাই করোনার জীবাণু ছড়াচ্ছি।’

admin

Read Previous

টিকে থাকার কিছুটা রসদ পেলেন ব্যবসায়ীরা

Read Next

হঠাৎ চীনের এই বক্তব্য কেন, বুঝতে চায় বাংলাদেশ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *