শনিবার ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম:
দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে রুয়েট বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদের উপহার সামগ্রী বিতরণ রাবির ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় অনুসরণীয় নির্দেশনাবলী রাবির সাবেক ভিসির বিরুদ্ধে দুদককে তদন্তের নির্দেশনা ছয় সপ্তাহ স্থগিত ২১০টি অনিয়মিত পত্রিকা বাতিলের তালিকা করা হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী রাসিকের সিমলা মার্কেট, বৈশাখী বাজার ও স্বপ্নচূড়া প্লাজার শেয়ার হস্তান্তর রামেক হাসপাতালের রক্ত পরীক্ষার টাকা জমার কাউন্টারে রোগি ও স্বজনদের ভোগান্তি চরমে রাজশাহীতে মাদক অপরাধ দমনে করণীয় নির্ধারণ সভা গরুর দাম বহুত বেশি ভাইয়া খবর যায় হোক এখানে ছবি আপলোড হবে বুঝছেন মিয়া ভাই মুশফিকের পর সাকিবকে ছাড়িয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় পরীমনি

সীমান্তে রোগ প্রতিরোধে প্রকল্প আছে, কাজ হয়নি

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

স্থলবন্দরগুলোতে স্ক্রিনিং সুবিধাসহ স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন করার জন্য অর্থ বরাদ্দ দিয়েছিল এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। এক বছরেও কাজটি এখনো শুরু করতে পারেনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও সমুদ্রবন্দরে আটটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র করার জন্য অর্থ দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। একটি কেন্দ্রও হয়নি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বিশ্বব্যাংক ও এডিবির প্রকল্প ছাড়াও আন্তর্জাতিক বন্দরগুলোতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা জোরদার ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ২০১৭ সাল থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একটি কর্মসূচি চালু আছে।তাতে বরাদ্দকৃত অর্থের ৫৮ শতাংশ ব্যয় হয়েছে প্রশিক্ষণে। সীমান্তের বন্দরগুলোতে প্রতিবেশী দেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসাসেবা দেওয়ার স্থায়ী কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক আকার ধারণ করায় সরকার গত ২৬ এপ্রিল থেকে দেশটির সঙ্গে সীমান্তের মানুষের যাতায়াত বন্ধ করে দেয়। যেসব নাগরিকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে, শুধু তাঁরাই ভারতে বাংলাদেশ মিশনের অনাপত্তি নিয়ে বেনাপোলসহ একাধিক স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফিরতে পারছেন। শুরুতে দুই সপ্তাহের জন্য সীমান্ত বন্ধের সিদ্ধান্ত হলেও কয়েক দফায় তা বেড়েছে। এর আগে আকাশপথে ভারতের সঙ্গে সরাসরি বিমান চলাচল বন্ধ করে সরকার।

অবশ্য জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আন্তর্জাতিকহেলথ রেগুলেশন (২০০৫) অনুযায়ী সীমান্তে যেসব ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ছিল, তা নেয়নি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সম্প্রতি দেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে গেছে। ধারণা করা হয়, প্রতিবেশী দেশের সংক্রমণ বৃদ্ধির সঙ্গে সীমান্তবর্তী জেলায় সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার সম্পর্ক থাকতে পারে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয় টাকা খরচ করতে দক্ষ নয়। কিন্তু জরুরি কিছু কাজ তারা করবে না, এটা ভাবা যায় না। মহামারির সময় আন্তর্জাতিক হেলথ রেগুলেশন বাস্তবায়নে তারা মনোযোগী হলে সীমান্তে সংক্রমণ হয়তো নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হতো।

বে-নজির আহমেদ, জনস্বাস্থ্যবিদ

সাতটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র হয়নি

করোনা মোকাবিলায় বিশ্বব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় ‘কোভিড–১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড পেনডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় গত বছর প্রকল্পের পরিচালক বদলি করা হয়। তবে পরিচালক বদলালেও প্রকল্পে গতি আসেনি।

এ প্রকল্পের আওতায় ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিব বিমানবন্দরে তিনটি, চট্টগ্রামে শাহ আমানত আন্দর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি এবং সিলেটে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি মেডিকেল স্ক্রিনিং সেন্টার করার কথা বলা আছে। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও মোংলা আন্তর্জাতিক সমুদ্রবন্দরে একটি করে সেন্টার করার কথা।

কোন সেন্টারের আয়তন কী হবে, তা–ও প্রকল্প দলিলে উল্লেখ আছে। পাশাপাশি প্রতিটি সেন্টারে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন থার্মাল স্ক্যানারসহ কী কী যন্ত্রপাতি ও চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনা হবে এবং তার জন্য বরাদ্দ কত, তা বলা আছে।

প্রকল্পের পরিচালক ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী গতকাল বৃহস্পতিবার প্রথম আলোকে বলেন, সাতটি সেন্টারের অবকাঠামো নির্মাণের জন্য বরাদ্দ আছে ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা। কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবকাঠামো নির্মাণের কাজ এখনো শুরু হয়নি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলেছেন, অবকাঠামো নির্মাণের পর প্রতিটি সেন্টারে চিকিৎসকসহ জনবল নিয়োগ এবং প্রয়োজীয় যন্ত্রপাতি কেনা হবে। কত দিনে সেটা হবে, তা তাঁরা জানেন না।

স্থলবন্দর তৈরি নয়

করোনা মোকাবিলায় এডিবির সহায়তায় কোভিড–১৯ রেসপন্স ইমার্জেন্সি অ্যাসিস্ট্যান্স প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ প্রকল্পে ২৬টি স্থলবন্দরে মেডিকেল স্ক্রিনিং সেন্টার করার কথা। তবে প্রকল্প অনুযায়ী কাজ শুরু হয়নি।

এ প্রকল্পের পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম একই সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখারও পরিচালক। গতকাল তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে সাতটি স্থলবন্দরে স্ক্রিনিং সেন্টার হবে। শিগগির কাজ শুরু হবে।

প্রথম আলোর পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, ২০২১ সালের মার্চ মাসেস্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের একটি কক্ষে একটি আর্চওয়ে মেশিন বসানো হয়। এখানে যাত্রীদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হয়। পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন মো. ফজলুর রহমান জানান, বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের জন্য পৃথকভাবে স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো জনবল না থাকায় উপজেলা পর্যায়ের চিকিৎসক এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকর্মীদের মাধ্যমে এসব কাজ চালানো হতো। এখন সীমান্ত বন্ধ রয়েছে।

তবে এখন ভারত, ভুটান ও নেপাল থেকে প্রবেশ করা পণ্যবাহী ট্রাকচালকদের কোনো প্রকার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে না। জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির নির্দেশনা রয়েছে, প্রয়োজন ছাড়া গাড়ির চালক নামতে পারবেন না।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ২০১৭ থেকে ২০২০ সালের মার্চ পর্যন্ত সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে আসা মানুষের স্বাস্থ্য পরীক্ষার কোনো ব্যবস্থা ছিল না। ২০২১ সালের ২৭ জানুয়ারি থেকে তিন সদস্যের একটি মেডিকেল টিম ভারত থেকে আসা মানুষকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা (তাপমাত্রা ও করোনা উপসর্গ) করেন। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে স্ক্যানার চালু করা হয়েছে।

দিনাজপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, হিলি বন্দরে ২০২০ সালের আগ পর্যন্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা ছিল না। এখন একটি অস্থায়ী বুথ করা হয়েছে। একই তথ্য পাওয়া গেছে বুড়িমারী, তামাবিল, বিবিরবাজার, আখাউড়া ও ভোমরা স্থলবন্দর থেকে। এসব বন্দরে মহামারি শুরুর পর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আগেও কাজ হয়নি

মহামারি শুরুর আগে ২০১৭ সাল থেকে আন্তর্জাতিক বন্দরে স্বাস্থ্য পরীক্ষার অবকাঠামো নির্মাণ ও সেবাদানের জন্য কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে আসছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখা। ছয় বছরমেয়াদি (২০১৭–২০২২ সাল) এ কর্মসূচিতে আন্তর্জাতিক হেলথ রেগুলেশন বাস্তবায়নে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। তবে করোনা মহামারি শুরুর আগ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বন্দরগুলোতে এ নিয়ে কাজ বিশেষ হয়নি। ২০১৭ থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বরাদ্দকৃত টাকার সিংহভাগ খরচ হয়েছে প্রশিক্ষণে।

২০১৭ থেকে ২০২০ সালের ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত ওই কর্মসূচির পরিচালক ছিলেন অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা। তিনি অবসরে গেছেন। গত বছর মার্চে প্রথম আলোকে ব্যয়ের একটি লিখিত হিসাবে তিনি বলেছিলেন, ২০১৭–২০১৯ মেয়াদে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য রেগুলেশন বাস্তবায়ন কর্মসূচিতে প্রকৃত বরাদ্দ ছিল ২১ কোটি ২৫ লাখ ৩৬ হাজার। বরাদ্দের ৫৮ শতাংশ খরচ হয়েছিল প্রশিক্ষণ ও অবহিতকরণ সভায়। সীমান্তের বন্দরগুলোতে বা অন্য কোনো বন্দরে কী খরচ হয়েছিল তা হিসাবে ছিল না।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক মো. নাজমুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, গত এক বছরে আন্তর্জাতিক তিনটি বিমানবন্দর, দুটি সমুদ্র ও দুটি রেলওয়ে স্টেশন এবং ২৩টি স্থলবন্দর দিয়ে আসা ২২ লাখ ৫৭ হাজার ৬৬৬ জন যাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। যাত্রীদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ফরম তৈরি করা হয়েছে। ১৯টি নির্দেশিকা তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি মানসম্মত কার্যপ্রণালি বিধি (এসওপি) তৈরি করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন বা এক দেশ থেকে অন্য দেশে গমনাগমনের কারণে সংক্রমণ যেন না ছড়ায়, সে জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সদস্যদেশগুলোর জন্য ২০০৫ সালে আন্তর্জাতিক হেলথ রেগুলেশন তৈরি করে। এতে আন্তর্জাতিক বন্দরগুলোতে স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবা কী হবে, তা স্পষ্ট করে বলে দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

জনস্বাস্থ্যবিদ বে-নজির আহমেদ বলেন, ‘আমরা জানি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয় টাকা খরচ করতে দক্ষ নয়। কিন্তু জরুরি কিছু কাজ তারা করবে না, এটা ভাবা যায় না। মহামারির সময় আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য রেগুলেশন বাস্তবায়নে তারা মনোযোগী হলে সীমান্তে সংক্রমণ হয়তো নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হতো।’

এই বিভাগের আরও খবর

দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে রুয়েট বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদের উপহার সামগ্রী বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ মঙ্গলবার ফযলভঠ ৫টায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় (রুয়েট) শাখা বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদের উদ্যোগে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বী শতাধিক দরিদ্র

রাবির ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় অনুসরণীয় নির্দেশনাবলী

১. ট্রাফিক ব্যবস্থা সংক্রান্ত ক) সকল প্রকার যানবাহন বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা ও বিনোদপুর গেট দিয়ে প্রবেশ করবে এবং মেইন গেট দিয়ে বেরিয়ে যাবে। শারীরিক প্রতিবন্ধীরা যানবাহন

রাবির সাবেক ভিসির বিরুদ্ধে দুদককে তদন্তের নির্দেশনা ছয় সপ্তাহ স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম ও ক্ষমতার অপব্যবহার হয়েছে কিনা? তদন্ত করে ৬০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সুপ্রীমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ, দুর্নীতি

২১০টি অনিয়মিত পত্রিকা বাতিলের তালিকা করা হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী

রাজশাহী ডেস্ক: অনিয়মিত পত্রিকা বাতিল করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘২১০টি পত্রিকা, যেগুলো আসলে ছাপা হয় না। মাঝে মাঝে

রাসিকের সিমলা মার্কেট, বৈশাখী বাজার ও স্বপ্নচূড়া প্লাজার শেয়ার হস্তান্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) আওতায় নির্মিত সিমলা মার্কেটের সম্পূর্ণ এবং বৈশাখী বাজার ও স্বপ্নচূড়া প্লাজার শেয়ার আংশিক হস্তান্তর করা

রামেক হাসপাতালের রক্ত পরীক্ষার টাকা জমার কাউন্টারে রোগি ও স্বজনদের ভোগান্তি চরমে

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের রক্ত পরীক্ষার টাকা জমা দেয়ার কাউন্টারে প্রতিদিন চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে রোগি ও স্বজনদের। রক্ত পরীক্ষার জন্য একটিমাত্র