শিরোনাম:
এবার রাবির নতুন উপ-উপাচার্যকে ঘিরে বিতর্ক রাবির নতুন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান উল ইসলাম টিপু রাবি প্রশাসনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাউকে দায়িত্ব না দেওয়ার ও দ্রুত ভিসি নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শনের চর্চা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী বিতর্কিত ভূমিকার কাউকে ভিসি, প্রো-ভিসি নিয়োগ কেউই মেনে নেবে না’ ইতিহাসবিদ এ বি এম হোসেন : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবস্তম্ভ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নির্বাহী আদেশ অমান্যসহ তথ্য গোপনের অভিযোগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অফিসারদের উপস্থিতি চোখে পড়ে ‘হ্যাটস অফ টু ইউ স্যার’ ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুর তনয়া, দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপা, আপনি আস্থা ও ভরসার শেষ ঠিকানা’
১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাজশাহীতে গভীর রাতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়ানোর চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহী মহানগরীর হেতেমখাঁ এলাকার দুই পাড়ার যুবকদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণও ঘটে। ঘটনার সময় মসজিদের মাইক থেকে ঘোষণা দিয়ে এলাকাবাসীকে জড়ো করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়ানোর চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাঠিচার্জ করে উভয়পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০ টার এ ঘটনায় শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট রাজপাড়া থানায় কোনো মামলা হয়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তুচ্ছ ঘটনার জেরধরে মহানগরীর হেতেমখা এলাকার লিচুবাগান ও সিপাইপড়ার যুবকদের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি শাওনের ছোট ভাই শিমুল এবং তার লোকজনের সঙ্গে সিপাইপাড়ার যুবকদের মারামারির ঘটনায় কয়েকটি হাতমোবার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। ভাঙচুর করা হয় কয়েকটি দোকানপাট ও বাড়ির দরজা।

এ ঘটনার পর স্থানীয়রা মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষকে দোষারোপ করে মসজিদের মাইক থেকে ঘোষণা দিয়ে মসজিদে হামলার অভিযোগ করা হয়। এ সময় এলাকাবাসীকে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসার জন্যও আহ্বান জানানো হয়। এতে ওই এলাকায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। তবে খবর পেয়ে রাজপাড়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

এদিকে, ঘটনার পর রকি কুমার ঘোষ তার ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। এতে তিনি লিখেন, ‘আজকের ঘটে যাওয়া অনাকাঙ্খিত ঘটনাটির সাথে আমি কোনভাবে সম্পৃক্ত নই। পুরো বিষয়টা আমার বিরুদ্ধে একটি সুপরিকল্পিত গভীর ষড়যন্ত্র।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘আমার রাজনৈতিক, সামাজিক ও ব্যক্তিগত অবস্থান, সুনাম ও ইমেজ নষ্ট করার জন্য একটি স্বার্থন্বেষী গোষ্ঠী এই গভীর ষড়যন্ত্রের সাথে জড়িত। আমি দীর্ঘ দিন ছাত্র রাজনীতিতে অত্যন্ত সুনাম ও সততার সাথে রাজশাহীর সকল স্তরের মানুষের আস্থা, বিশ্বাস ও ভালোবাসা অর্জন করেছি।’

‘তৃতীয় কোন পক্ষ দু’টি গোষ্ঠীর মধ্যে ঘটে যাওয়া ব্যক্তিগত রেষারেষিকে সাম্প্রদায়িক রূপ দিয়ে রাজশাহীতে একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরী করতে চায়। এরা কারা??? যারাই এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার সাথে জড়িত সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচারের আওতায় আনতে হবে। রাজশাহীবাসীকে কোন ধরনের গুজব, অপপ্রচার ও প্রোপাগান্ডায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।’

রাজপাড়া থানার ওসি মাজাহারুল ইসলাম বলেন, দুই পাড়ার যুবকদের মধ্যে মারামারি নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। কে বা কারা মাইকে উস্কানি ছড়ানোর চেষ্টা করে। পরে পুলিশ গিয়ে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মহানগর ছাত্রদলের ক্ষোভ ও প্রতিবাদ

এদিকে রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম রবি স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শুক্রবার জানানো হয়, ‘গত ১৭ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার এশার নামাজ চলাকালীন সময়ে রাজশাহী মহানগরীর হেতেমখা লিচুবাগান জামে মসজিদে হামলা করে ভাঙচুর চালায় শাসকদলের বেপরোয়া উগ্র অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। এলাকার নিয়ন্ত্রণ ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় যুবলীগ এবং রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষের সশস্ত্র কিশোর গ্যাং- সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষের নেতৃত্বে লিচু বাগান মসজিদে সশস্ত্র হামলা পরিলক্ষিত হয় এবং হামলায় মসজিদটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় অনেক নামাজ আদায়রত উপস্থিত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিবৃন্দ সহ সাধারণ এলাকাবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এবং আওয়ামী লীগের অন্তবর্তী কোন্দলে লিপ্ত সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘বাংলাদেশের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ মহানগরী রাজশাহীতে প্রকাশ্যে মসজিদে এবং এলাকাবাসীর উপরে সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলা নজিরবিহীন। এ ঘটনার পর থেকে রাজশাহীবাসী সহ সাধারণ ধর্মপ্রাণ সকল গোষ্ঠীর মানুষ বিস্মিত ও আতঙ্কিত। আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা, ক্ষোভসহ প্রতিবাদ জানিয়েছেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম রবি, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুর্তুজা ফামিন, সিনিয়র যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকি, সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাকসুদুর রহমান সৌরভ সহ রাজশাহী মহানগর ছাত্রদল এবং মহানগর এর আওতাধীন সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, থানা,ওয়ার্ড ছাত্রদলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীবৃন্দ।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘রাজশাহীতে প্রকাশ্যে এইরূপ ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটলেও অদ্ভুত ও অজানা কারণে এখন পর্যন্ত কোন উগ্র আওয়ামী অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে দৃশ্যমান আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ বা গ্রেফতার করা হয়নি বরং হামলার শিকার সাধারণ মুসল্লি সহ এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে গেলেও বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন। ‘রাজশাহী মহানগর ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ অনতিবিলম্বে হামলায় প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট ছাত্রলীগ-যুবলীগ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা সকল গডফাদারদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবি জানাচ্ছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ-যুবলীগ অন্তর্কোন্দলের শিকার ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ সহ এলাকার সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাইদের নিরাপত্তার নিশ্চিতের আহ্বান জানাচ্ছে রাজশাহী মহানগর ছাত্রদল।’

 

admin

Read Previous

ফ্রি অক্সিজেনের পর রাজশাহীতে এবার ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

Read Next

স্বাস্থ্যবিধি না মানায় রাজশাহীতে এক সপ্তাহে ১৩৭ মামলা ॥ জরিমানা দেড় লাখ টাকা জরিমানা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *